কাশ্মীরে সাধারণ নাগরিক খুন, জম্মু-কাশ্মীরে ৭০০ টেররিস্ট সিম্প্যাথাইজার আটক

কাশ্মীরে সাধারণ নাগরিক খুন, জম্মু-কাশ্মীরে ৭০০ টেররিস্ট সিম্প্যাথাইজার আটক

আরোহী নিউজ ডেস্ক: গত এক সপ্তাহ ধরে জম্মু-কাশ্মীরে একের পর এক অব্যাহত জঙ্গি হামলায় ৭ জন সাধারণ নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। ফলে মাঠে নেমেছিল নিরাপত্তা বাহিনী। তারই ধারাবাহিকতায় মোট ৭০০ জন টেররিস্ট সিম্প্যাথাইজারকে আটক করল নিরাপত্তা বাহিনী। আটককৃতদের সাথে জামায়াত-ই-ইসলামি-সহ একাধিক নিষিদ্ধ সংগঠনের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সম্পর্ক এবং যোগাযোগ রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। আটককৃত টেররিস্ট সিম্প্যাথাইজাররা শ্রীনগর, বাদগাম ও দক্ষিণ কাশ্মীরের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা।

বিগত কয়েক দিনে হামলার শিকার হয়েছেন, কাশ্মীরি পণ্ডিত ও শিখ সম্প্রদায়ের মানুষ। জম্মু-কাশ্মীরের এক পুলিস আধিকারিক জানিয়েছেন, ওইসব লোকজনকে জঙ্গিগোষ্ঠীর সাথে সংশ্লিষ্টতা থাকার জন্য গ্রেফতার করা হয়েছে, এতে হামলার সঙ্গে জড়িতদের চক্র ভাঙা সম্ভব হবে। স্থানীয় পুলিস আধিকারিকের ধারণা, আফগানিস্থানে তালিবান ক্ষমতায় আসার পর থেকে কাশ্মীরে জঙ্গিবাদ বৃদ্ধি পেতে পারে। ফলে হামলাকারী জঙ্গিরা হামলার জন্য সহজ টার্গেট হিসেবে কাশ্মীরি পন্ডিত ও শিখদেরকে বেছে নিচ্ছে। 

গত এক সপ্তাহে জঙ্গিদের হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়া ৭ জন ব্যক্তির মধ্যে যে ২ স্কুল শিক্ষকও রয়েছেন। বৃহস্পতিবার দিন শ্রীনগরে সুপেন্দর কউর ও দীপ চাঁদ নামে দুই শিক্ষককে গুলি করে হত্যা করে স্থানীয় জঙ্গিরা। এছাড়াও গত সপ্তাহের মঙ্গলবার দিনে শ্রীনগরের ইকবাল পার্ক এলাকায় মাখনলাল বিন্দ্রু নামের এক ওষুধের দোকানদারকে নির্মমভাবে হত্যা করে জঙ্গিরা। খুন হন। একই দিনে বীরেন্দ্র পাসোয়ান নামের রাস্তার এক খাবার বিক্রেতাকে হত্যা করে জঙ্গিরা। ওইসব খুনের ঘটনার সঙ্গে দ্যা রেনেসাঁ ফ্রন্ট নামে একটি জঙ্গিবাদী সংগঠন জড়িত রয়েছে ধারণা করছে পুলিস। এই সংগঠনটি লস্কর-ই-তৈয়বার একটি শাখা সংগঠন।