দুর্গোৎসবে মজে তাইওয়ান

দুর্গোৎসবে মজে তাইওয়ান

আরোহী নিউজ ডেস্ক: বাঙালিরা পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছেন। এক প্রবাসী বাঙালির কাছে সবচেয়ে বড় চাহিদা হল নিজের সংস্কৃতিকে প্রবাসে খুঁজে পাওয়া। তাইওয়ানে এরকম এক ইচ্ছের টানে তৈরি হয় "তাইওয়ান বেঙ্গলি অ্যাসোসিয়েশন"। একজন প্রবাসী বাঙালির কাছে এটা অমূল্য। কয়েকটি পরিবার আর কিছু ছাত্র-ছাত্রী মিলে 2009 সালে প্রথম তাইওয়ানে দুর্গাপূজা শুরু করা হয়। প্রথম পুজোতে ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় 40 জন অংশগ্রহণকারীর মাধ্যমে যে বীজ বপন করা হয়েছিলো তা আজকে সকলের সার্বিক প্রচেষ্টায় এক মহীরুহে পরিণত হয়েছে।

প্রত্যেক বছরের মতো এ-বছরও দুই দিনেই পূজো পরিচালনা করার সংকল্প নেওয়া হয়। প্রথম দিন অর্থাৎ মহাঅষ্টমীর পূণ্য তিথিতে দেবীর পুজো আর দ্বিতীয় দিন বিজয় দশমী উপলক্ষে বিজয় সম্মেলনী। এই পুজোর এক প্রধান অঙ্গ হল বাঙালির ভুরিভোজ, আড্ডা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। পুজোর দিন যেমন আয়োজিত হয় এক জমজমাট সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের, তেমনি বিজয়া সম্মিলনীতে হয় চিরাচরিত রীতির সিঁদুর খেলা ও ধুনুচি নাচ। বড়দের সাথে তালে তাল মিলিয়ে ছোটরাও ছড়া নাচ ও গানের মাধ্যমে সময়টাকে ভরিয়ে তোলে। এ বছর তাইওয়ান সরকার নির্দেশিত সবরকম COVID বিধি মেনে শারদ উৎসব উদযাপন করা হচ্ছে।