রয়টার্সের সমীক্ষায় চাঞ্চল্যকর তথ্য,অধিকাংশ ভারতীয়ের ভরসা সামাজিক মাধ্যমের খবরে 

রয়টার্সের সমীক্ষায় চাঞ্চল্যকর তথ্য,অধিকাংশ ভারতীয়ের ভরসা সামাজিক মাধ্যমের খবরে 

আরোহী নিউজ ডেস্ক: অধিকাংশ ভারতীয়দের কাছে বিশ্বাসযোগ্যতা পাচ্ছে হোয়াটস্যাপের খবর। গত বৃহস্পতিবার এমনই একটি তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে  অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘রয়টার্স ইনস্টিটিউট ফর দ্য স্টাডি অফ জার্নালিজম’-এর গবেষণায়। সংবাদমাধ্যম এবং সামাজিকমাধ্যমের  খবরের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে বেশ কিছু দেশের মধ্যে একটি সমীক্ষা করা হয়েছিল।দেশগুলির মধ্যে ছিল ভারত,ব্রাজিল,ব্রিটেনএবং আমেরিকা।ডিজিটাল মাধ্যমের খবর সম্পর্কে সাধারণ মানুষের কি ধারণা,সেই বিষয়ে জানতেই এই সমীক্ষা করা হয়েছিল। সমীক্ষার থেকে জানা গিয়েছে,৭৭% মানুষ সংবাদমাধ্যমের খবরে বিশ্বাস রাখলেও ৫৪% মানুষ বিশ্বাস করেন হোয়াটস্যাপের খবরে।সামাজিক মাধ্যমগুলির মধ্যে ইউটিউব এবং গুগলের খবরে বিশ্বাস রাখেন ৫১% মানুষ।ফেসবুকের খবরে ভরসা রাখেন ৪১% ভারতীয়। ইনস্টাগ্রামে এবং টুইটারের খবরে ভরসা রাখেন ২৭%এবং২৫% ভারতীয়।এই সমীক্ষায় উঠে আসা তথ্যে দেখা গেছে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থনে যারা মতামত প্রদান করেন তাদের মধ্যে ৭০% হোয়াটস্যাপের খবরে বিশ্বাস করেন।৪৮% ভারতীয়র মতামত অনুযায়ী দিনে তাঁরা একবার অনলাইনে খবর পান,অন্য দেশের তুলনায় এই হার অনেকটাই কম। ৩৪% মতে তারা অনলাইনে কোন খবর পাননা এবং ৪৬% ভারতীয়র মতে তারা রোজ হোয়াটস্যাপে খবর পান। 

রাজনৈতিক খবরে আগ্রহী ৬৯% ভারতীয়র মতে ইউটিউবের খবরই তাঁদের একমাত্র ভরসা তবে অন্যদিকে যাদের রাজনৈতিক আগ্রহ নেই তাঁরা হোয়াটস্যাপের খবরকেই বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। ইদানিংকালে হোয়াটস্যাপের খবরেই মানুষের ভরসা বাড়ছে,খুব সহজেই বিশ্বের যেকোন প্রান্তের খবর পাওয়া যায় হোয়াটস্যাপে। বর্তমানে যেহেতু ভুয়ো খবরের পরিমান বাড়ছে এবং খুব সহজেই হোয়াটস্যপের মাধ্যমে এই খবরগুলিকে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগও এসেছে বহুবার।এই অবস্থায় এমন একটি সমীক্ষা প্রচন্ড গুরূত্বপূর্ণ বলেই মতামত বিশেষজ্ঞদের।