শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী হয়েই মোদিকে ধন্যবাদ  বিক্রমাসিংঘের

শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী হয়েই মোদিকে ধন্যবাদ  বিক্রমাসিংঘের

আরোহী নিউজ ডেস্ক: ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে চায় শ্রীলঙ্কা। ষষ্ঠবার প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেওয়ার পর এমনই বার্তা দিলেন রনিল বিক্রমাসিংঘে। বৃহস্পতিবার শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন তিনি। আর তারপরই শ্রীলঙ্কাকে অর্থনৈতিক সহায়তার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেও ধন্যবাদ জানান বিক্রমাসিংঘে।

অর্থনৈতিক সংকটের জেরে বিক্ষোভের আগুনে পুড়ছে শ্রীলঙ্কা। আর্থিক পরিস্থিতি ও দলের লোকের অসন্তোষের মুখে অবশেষে সোমবার শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দেন মহিন্দা রাজাপক্ষে। বিক্ষোভের আগুন নেভানি তাতেও। এরপরই বৃহস্পতিবার রনিল বিক্রমাসিংঘেকে দেশের নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করেন প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে। এদিন শপথ নিয়েই ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ার আহ্বান জানান বিক্রমাসিংঘে। জানান, 'আমি চাই ভারতের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়তে। এবং আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই প্রধানমন্ত্রী মোদিকে।' একইসঙ্গে দেশ এই আর্থিক সঙ্কট থেকে বেরিয়ে আসবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি। বলেন, স্বাধীনতার পর সবচেয়ে বড় সঙ্কটের সম্মুখীন হয়েছে দেশ। এই সমস্যার সম্ভাব্য সমাধান রয়েছে বলেও জানান শ্রীলঙ্কার নয়া প্রধানমন্ত্রী।

গত কয়েকমাস ধরেই আর্থিক সঙ্কটে ধুঁকছে গোটা দেশ। মুদ্রাস্ফীতির জেরে বাড়ছে পেট্রোপণ্য সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম। দেখা যাচ্ছে খাদ্য সঙ্কটও। জ্বালানির হাহাকারে কার্যত বন্ধ পরিবহণ। এই পরিস্থিতিতে প্রতিবাদে পথে নামে সাধারণ মানুষ। সোমবারে রাজধানী কলম্বোয় কার্ফু উপেক্ষা করে রাস্তায় নেমেছিলেন হাজার হাজার বিক্ষোভকারী। আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় দোকান, বাড়ি, সরকারি কার্যালয়ে। হামলা চালানো হয় সরকারপক্ষের এমপি এবং নেতাদের বাড়িতেও। এমন পরিস্থিতিতে বুধবার রাষ্ট্রপতি শাসক দল ও প্রধান বিরোধী দল এসজেবির প্রতিনিধিদের বৈঠকে দেশের নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বিক্রমাসিংঘেকে বেছে নেন গোতাবায়া রাজাপক্ষে।