চিহ্নিত ভারতে করোনার ঝুঁকির কারণ

চিহ্নিত ভারতে করোনার ঝুঁকির কারণ

আরোহী নিউজ ডেস্ক: বিশ্বজুড়ে করোনা সংক্রমণ অব্যাহত। ফের সংক্রমণ বাড়ছে ভারত সহ দক্ষিণ এশীয় দেশগুলিতে। এবার তার মধ্যেই বিপজ্জনক একটি জিনের উপস্থিতি সনাক্ত করল বিজ্ঞানীরা। দক্ষিণ এশীয়দের শরীরে এই জিনের খোঁজ মিলেছে। যা করোনা আক্রান্তদের শ্বাসযন্ত্রের ব্যর্থতার ঝুঁকি দ্বিগুণ করে দেয়। যার জেরে এই জিনই মৃত্যুর কারণ হয় দাঁড়াতে পারে।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা পর্যবেক্ষণ, এই জিনের একটি উচ্চ-ঝুঁকিপূর্ণ সংস্করণ শ্বাসনালী এবং ফুসফুসের আস্তরণের কোষগুলিকে ভাইরাসের প্রতি সঠিকভাবে প্রতিক্রিয়া জানাতে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত সমীক্ষা অনুসারে, দক্ষিণ এশীয়দের ৬০ শতাংশের শরীরে এ জিনের উপস্থিতি রয়েছে, ইউরোপীয়দের ক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ। গবেষকরা বলছেন, এই জিনটি ২ শতাংশ আফ্রিকান-ক্যারিবিয়ানদের শরীরের এবং ১.৮ শতাংশ পূর্ব এশীয়দের শরীরে রয়েছে। এ জিনটির কারণে বেড়ে যাওয়া ঝুঁকি হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে ভ্যাকসিন।

কিছু নির্দিষ্ট সম্প্রদায় এবং ভারতীয় উপমহাদেশে হাসপাতালে ভর্তি এবং মৃত্যুর উচ্চ হারের কারণ জানতে দ্য ন্যাচার জেনেটিকস স্টাডি নামক ওই গবেষণাটি করা হয়। তবে এই গবেষণায় প্রশ্নের জবাব পুরোপুরি পাওয়া যায়নি বলেও মানছেন গবেষকরা। আগের জেনেটিক গবেষণার উপর ভিত্তি করে এবার গবেষকরা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ও নতুন আণবিক প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে এই বিপজ্জনক জিনটিকে শনাক্ত করেছেন গবেষকরা। জিনটির নাম এলজেডটিএফএল-ওয়ান।

প্রধান গবেষক অধ্যাপক জেমস ডেভিস এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, 'এই আবিষ্কারটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল, কারণ এতে জানা গেল ঝুঁকিপূর্ণ জিন সব জনসংখ্যাকে সমানভাবে প্রভাবিত করে না। তবে এর বাইরেও অন্যান্য কারণ রয়েছে যা করোনার ঝুঁকি বাড়ায়। কিছু সম্প্রদায় কেন মহামারী দ্বারা বেশি আক্রান্ত তা জানতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে আর্থ-সামাজিক কারণও গুরুত্বপূর্ণ।'