সম্প্রীতির প্রকৃত মেলবন্ধন, এই পুজো কমিটির সভাপতি হিন্দু এবং সম্পাদক মুসলিম সম্প্রদায়ের

এই পুজো কমিটিতে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করে চলেছে ২২ জন মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ

সম্প্রীতির প্রকৃত মেলবন্ধন, এই পুজো কমিটির সভাপতি হিন্দু এবং সম্পাদক মুসলিম সম্প্রদায়ের

আরোহী নিউজডেস্ক: বেশ কয়েক বছর ধরেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মেল বন্ধনে দেখা গিয়েছে পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি শহরের হাসপাতাল পাড়া সর্বজনীন দুর্গোৎসবে। এই পুজো কমিটির সভাপতি হিন্দু এবং সম্পাদক মুসলিম সম্প্রদায়ের। শুধু তাই নয় এই পুজো কমিটিতে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করে চলেছে ২২ জন মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ। যা এক কথায় নজিরবিহীন বটে। এ বছর ওই পুজো ৩৩ তম বর্ষে পদার্পণ করেছে। মেমারি হাসপাতাল পাড়া সর্বজনীনে এবারের থিম 'পৃথিবী আবার শান্ত হবে'। তবে এই পুজোর বিশেষত্ব হল পুজো কমিটিতে হিন্দু মুসলিম যুবকদের একসাথে কাজ করাটাই।

পুজো কমিটির সম্পাদক শেখ হাসান কাজী জানিয়েছেন, তারা মুসলিম সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয়েও সমান উদ্যোগে হিন্দুদের সাথে মিলেমিশে এই পূজার অংশগ্রহণ করেন। তাঁর দাবি, এতে কখনও কোনও রকম বাধা তো আসেনি বরং মিলেছে উৎসাহ। আমরা হিন্দু মুসলিম ভাই ভাই এখানে কোনো সাম্প্রদায়িক ভেদাভেদ নেই। এলাকাবাসীর দাবি, ৩৩ বছর আগে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষজনের উদ্যোগেই মূলত চালু হয়েছিল এই পুজো। আজও সেই ধারা অব্যাহত। শেখ হাসান কাজীর দাবি, তাঁদের পরিবারের সকল সদস্যই দুর্গাপুজোয় যেমন নতুন জামা-কাপড় পড়েন, ঈদের সময়ও পড়েন। স্থানীয়দের বক্তব্য, খুব বড় বাজেটের পুজো না হলেও মেমারি হাসপাতাল পাড়া সর্বজনীনের পুজো বাংলার আর পাঁচটা পুজো থেকে অনেকটাই আলাদা, যা অন্যান্যদের কাছে দৃষ্টান্ত হতেই পারে।