চাবিওয়ালা নিয়ে অর্পিতার পণ্ডিতিয়া রোডের ফ্ল্যাটে হাজির ED

পণ্ডিতিয়া রোডের ফোর্ট ওয়েসিস আবাসনের ৬ নম্বর ব্লকের ৫০৩ নম্বর ফ্ল্যাটটি একসময় পার্থ ঘনিষ্ট অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের নামেই ছিল

চাবিওয়ালা নিয়ে অর্পিতার পণ্ডিতিয়া রোডের ফ্ল্যাটে হাজির ED

আরোহী নিউজডেস্ক: মঙ্গলবার প্রায় সাত ঘণ্টা চেষ্টা করেও অর্পিতা মুখ্যোপাধ্যায়ের পণ্ডিতিয়া রোডের ফ্ল্যাটে ঢুকতে পারেননি ইডির আধিকারিকরা। ফলে বুধবার সকালে ফের ওই ফ্ল্যাটে হাজির হলেন ইডির আধিকারিকরা। তাৎপর্যপূর্ণভাবে এদিন ইডির তদন্তকারী দলের সঙ্গে ছিলেন একজন চাবিওয়ালা ও হাতুড়ি। ফলে অনুমান করা যায়, ওই ফ্ল্যাটেও নগদ টাকা বা গুরুত্বপূর্ণ কোনও নথি পাওয়ার আশা করছেন তদন্তকারীরা। সূত্রের খবর, পণ্ডিতিয়া রোডের ফোর্ট ওয়েসিস আবাসনের ৬ নম্বর ব্লকের ৫০৩ নম্বর ফ্ল্যাটটি একসময় পার্থ ঘনিষ্ট অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের নামেই ছিল। পরে সেটির হাতবদল হয়।

কিন্তু আজও ফ্ল্যাটটি অর্পিতার দখলেই আছে বলেই জানতে পেরেছে ইডি। এই টানাপোড়েনের জেরেই মঙ্গলবার ওই ফ্ল্যাটে ঢুকতে পারেননি ইডি আধিকারিকরা। বুধবার সমস্ত দিক নিশ্চিন্ত হয়েই আধিকারিকরা প্রথমে রবীন্দ্র সরোবর থানায় যান। পরে পুলিশকে জানিয়ে পৌঁছে যায় ওই আবাসনে। সেখানে প্রচুর পরিমান কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনীর জওয়ান মোতায়েন করা হয়েছে নিরাপত্তার স্বার্থে। পাশাপাশি কলকাতা পুলিশের একটি দলও রয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত, একজন চাবিওয়ালাকে দিয়ে ওই ফ্ল্যাটের তালা খোলার চেষ্টা করছেন ইডি আধিকারিকরা।

তদন্তকারীদের অনুমান, এই ফ্ল্যাটটি বেনামে কেনা। কারণ মালিক হিসেবে ব্যবসায়ী স্বাতী ঝুনঝুনওয়ালার নাম রয়েছে। কিন্তু মঙ্গলবার সারাদিনে ওই ফ্ল্যাটের প্রকৃত মালিকের খোঁজ পাওয়া যায়নি। আবাসনে রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রদেয় টাকাও বকেয়া রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে। যার পরিমান প্রায় ৫ লক্ষ টাকা। ইডি জানতে পেরেছে এই ফ্ল্যাটে প্রায়ই আসতেন অর্পিতা। ফলে এখানেও নগদ টাকা, গয়না বা গুরুত্বপূর্ণ নথি পাওয়া যেতে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে।