ইউক্রেনের দখলে থাকা চার রাজ্যে গণভোটে রাশিয়ার পক্ষে, দাবি ক্রেমলিনের

যুদ্ধ চলাকালীনই রাশিয়া লুহানস্ক, ডনেৎস্ক, জ়াপোরিজিয়া ও খেরসন প্রদেশে ভোট করায়

ইউক্রেনের দখলে থাকা চার রাজ্যে গণভোটে রাশিয়ার পক্ষে, দাবি ক্রেমলিনের

আরোহী নিউজডেস্ক:  ক্রিমিয়া ঘটনার পুনরাবৃত্তি? রাষ্ট্রপুঞ্জের নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে পূর্ব ইউক্রেনের দখলে থাকা অংশে 'গণভোট' করল রাশিয়া। শুধু তাই নয় এবার রাশিযা দাবি করল, ভোটের ফল রাশিয়ার পক্ষেই গিয়েছে। মঙ্গলবার দক্ষিণ ইউক্রেনের মস্কো-অধিকৃত দুটি অঞ্চলের কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, এই এলাকার অধিবাসীরা মস্কোর পক্ষেই রায় দান করেছেন।


যুদ্ধ চলাকালীনই রাশিয়া লুহানস্ক, ডনেৎস্ক, জ়াপোরিজিয়া ও খেরসন প্রদেশে ভোট করায়। দক্ষিণ জাপোরিঝিয়া অঞ্চলের স্থানীয় নির্বাচন সংস্থার দাবি , সমস্ত ব্যালট গণনা করার পরে দেখা গেছে ৯৩.১১ শতাংশ ভোটার রাশিয়ান সংযুক্তির পক্ষে রায় দান করেছেন। খেরসনেও প্রায় ৮৭ শতাংশ মানুষ রাশিয়ার সঙ্গে সংযুক্তিতে সায় দিয়েছে। রুশ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত পূর্ব লুবানস্কের ৯১ শতাংশ অধিবাসীও রাশিয়ার পক্ষেই মোট দেন করেছেন। সূত্রের খবর, ফল ঘোষণার পরেই  এলাকাগুলিকে দ্রুত রাশিয়ার অন্তর্গত করার জন্য তাঁরা রুশ রাষ্ট্রপ্রধান ভ্লাদিমির পুতিনের কাছে বার্তা পাঠাবেন। যদিও এই দাবি স্বীকার করতে রাজি হয়নি ইউক্রেন-সহ ইউরোপ ও আমেরিকার বেশিরভাগ দেশ। তাঁদের দাবি এই গণভোট জাল। অন্যদিকে জাতিসংঘ এক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, তাঁরা "স্বীকৃত" সীমান্তের মধ্যে ইউক্রেনের "আঞ্চলিক অখণ্ডতার" প্রতি "প্রতিশ্রুতিবদ্ধ"।


প্রসঙ্গত, ইতিহাসের পুনরাবৃত্তিই আশা করা হয়েছিল। ২০১৪ সালে ক্রিমিয়ায় গণভোট করেছিল রাশিয়া। রাশিয়া দাবি করে প্রায় ৯৬.৭ শতাংশ ভোট ক্রেমলিনের সমর্থনে পড়েছে। রাতারাতি রাশিয়া ক্রিমিয়া দখল করে। যদিও পরবর্তী কালে রাশিয়ার মানবাধিকার কাউন্সিলের একটি গোপন রিপোর্টে জানা যায়, ক্রিমিয়াতে  ৭০ শতাংশ মানুষ নিজের মত দেন করতেই পারেননি। বাকি ৩০ শতাংশের অর্ধেক মানুষ রাশিয়াকে সমর্থন করেছিলেন। পশ্চিমি দেশগুলির দাবি, লুহানস্ক, ডনেৎস্ক, জ়াপোরিজিয়া ও খেরসন প্রদেশের গণভোটেও প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছে রাশিয়া। সূত্রের  খবর, রুশ পার্লামেন্টে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর, ইউক্রেনের দখল করা অংশগুলিকে আনুষ্ঠানিক ভাবে রুশ ফেডারেশনে সংযুক্ত করার কথা ঘোষণা করবেন রুশ রাষ্ট্রপ্রধান ভ্লাদিমির পুতিন।