জল্পনার অবসান তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন অর্জুন সিংয়ের

জল্পনার অবসান  তৃণমূলে  প্রত্যাবর্তন  অর্জুন  সিংয়ের

আরোহী নিউজ ডেস্ক: গুঞ্জন শুরু হয়েছিল কয়েকদিন আগে থেকে। পাটশিল্প নিয়ে সরাসরি বিজেপি-কে নিশানা করার পর থেকে। পাট শ্রমিকদের স্বার্থে প্রয়োজনে এক মঞ্চে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে আন্দোনল করতেও পিছপা হবেননা বলে জানিয়েছিলেন। শুধু তাই-ই নয়, সংগাঠনিক বিষয়ে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বকে নিশানা করতে ছাড়েননি।  এরপরই  অর্জুন সিংয়ের ঘর ওয়াপসি সময়ের অপেক্ষা বলে মনে করেছিল সকলে। সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটল রবিবার। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে পদ্ম ছেড়ে প্রায় তিন বছর পর ফের তৃণমূলে ফিরে এলেন বারাকপুরের সাংসদ। আর ঘরে ফেরা নিয়ে দিনভর কম নাটক হলো না। সকাল থেকে ছিল সাজোসাজো রব। তাঁর লোকসভা অঞ্চলে তৃণমূলে ফেরা নিয়ে পোস্টার যেমন ছিলেন, তেমনি ছিল বিজেপি  সাংসদের দল ছাড়ার ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্যও। তবে অর্জুনকে ঘরে ফেরানোর আগে ঘাসফুল শিবিরে তৎপরতাও ছিল যথেষ্ট। ক্যামাক স্ট্রিটের অফিসে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, পার্থ ভৌমিক, রাজ চক্রবর্তীদের সঙ্গে একপ্রস্থ বৈঠক করেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরই তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদকের হাত থেকে তৃণমূলের পতাকা তুলে নেন অর্জুন। আর পুরনো দলে ফিরেই বিজেপির সমলাচোনায় সরব হলেন বারাকপুরের সাংসদ। গেরুয়া শিবিরকে ফেসবুক নির্ভর দল বলে কটাক্ষ করেন। পুরনো দলে নতুন করে কাজ করার কথা শোনান অর্জুন সিং।

 ২১ শে বিধানসভা নির্বাচনের পর বিজেপি সম্পর্কে মোহভঙ্গ হয়েছিল মুকুল রায় ও রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের। তুলে নিয়েছিলেন ঘাস-ফুলের পতাকা। এবার অর্জুন।সোমবারই নবান্নে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে পারেন বারাকপুরের সাংসদ। তবে, অর্জুনের এই দলত্যাগ নিয়ে ইতিমধ্যে উঠছে প্রশ্ন। বিজেপিতে যোগদানের পর অর্জুনের জনপ্রিয়তার চির ধরে। লোকসভা নির্বাচনে নিজে জিতলেও, বিধানসভায় তাঁর লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত সাতটি বিধানসভার মধ্যে ছ’টিতে হারতে হয়েছে গেরুয়া শিবিরকে। হাতছাড়া হয়েছে ভাটপাড়া পুরসভাও। তাই নিজের অস্তিত্ব বাঁচাতে ফের তৃণমূলের হাত ধরলেন তিনি। এমনটাই মত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।