হোস্টেলে ছাত্রীদের স্নানের ভিডিও ভাইরাল, উত্তাল চণ্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্ধ ক্লাস

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-চ্যান্সেলর জানিয়েছেন, এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। কোনও ছাত্রী আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেনি

হোস্টেলে ছাত্রীদের স্নানের ভিডিও ভাইরাল, উত্তাল চণ্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্ধ ক্লাস

আরোহী নিউজডেস্ক: ভাইরাল ভিডিও কাণ্ডে তোলপাড় চণ্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয়। অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের হোস্টেলে ছাত্রীদের স্নানের ভিডিও তৈরি ও তা নেটমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। ঘটনায় চণ্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস চত্বরে জমায়েত করে বিক্ষোভ দেখান ছাত্রছাত্রীরা। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফে হস্টেলের দুই ওয়ার্ডেনকেও ইতিমধ্যেই বরখাস্ত করা হয়েছে।  সমস্ত হস্টেলের ওয়ার্ডেনদের বদলি করা হচ্ছে এবং হস্টেলের সময়সূচি পরিবর্তন করা হচ্ছে বলেও জানা গিয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে আগামী ৬ দিন বন্ধ রাখা হচ্ছে চণ্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের পঠন-পাঠন। যদিও এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত ওই ছাত্রী এবং তাঁর প্রেমিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সূত্রের খবর, ভিডিও ভাইরাল করার জন্য আরও এক অভিযুক্তকে ধরেছে পাঞ্জাব পুলিশ। 

উল্লেখ্য, এর আগেই চণ্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হোস্টেলে ছাত্রীদের স্নানের ভিডিও নেটমাধ্যমে ভাইরাল হয়। কমকরে ৬০ জন ছাত্রীর স্নানের দৃশ্য নেট মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে বলে দাবি। এও অভিযোগ উঠছে, লজ্জায়-অপমানে এক ছাত্রী আত্মহত্য়া করার চেষ্টা করেন। এরপরই উত্তাল হয়ে ওঠে গোটা চন্ডীগড়। পড়ুয়াদের বিক্ষোভে পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে শহর। যদিও  বিশ্ববিদ্যায়লয় কর্তৃপক্ষের দাবি, অভিযুক্ত ছাত্রী স্বেচ্ছায় তাঁর প্রেমিককে ছাত্রীদের স্নানের দৃশ্যের ভিডিও করে পাঠিয়েছে। ওই প্রেমিকই পরে ওই ভিডিও গণমাধ্যমে ভাইরাল করে। ঘটনার তদন্তে নেমে ওই ছাত্রী ও তাঁর প্রেমিককে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার ঘটনায় আরও এক অভিযুক্তকেও গ্রেফতার করল পুলিশ।

পাশাপাশি, সোমবারই চণ্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফে ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সমস্ত ক্লাস সাসপেন্ড করার সিদ্ধান্তের কথা জানান হয়। লাগাতার ছাত্র বিক্ষোভের জেরেই এই সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। প্রসঙ্গত, ছাত্রীদের হস্টেলের এক আবাসিক অন্যান্য আবাসিকদের আপত্তিকর ভিডিও রেকর্ড করেন বলে অভিযোগ ওঠে। কমপক্ষে  ৫৫ থেকে ৬০ জন ছাত্রীর স্নানের দৃশ্য মোবাইল বন্দি করেছেন ওই তরুণী। তারপর সেই ভিডিও হিমাচল প্রদেশের শিমলার বাসিন্দা তাঁর প্রেমিকের কাছে পাঠিয়ে দিতেন। সেখান থেকে এমএমএস বানিয়ে ওই ভিডিও নেটমাধ্যমে আপলোড করে দেওয়া হত।

নেটমাধ্যমে ওই ভিডিওগুলি ছড়াতেই আট ছাত্রী আত্মহত্যার চেষ্টা করেন বলেও অভিযোগ । যদিও ছাত্রীদের আত্মহননের চেষ্টার খবরটিকে গুজব বলই উড়িয়ে দিয়েছেন চন্ডীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো চ্যান্সেলর। তিনি সংবাদ মাধ্যমকে জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-চ্যান্সেলর জানিয়েছেন, ”এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। কোনও ছাত্রী আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেনি।" পাশাপাশি তিনি অভিভাবক ও পড়ুয়াদের কাছে আবেদন জানিয়েছেন যাতে কোনও প্ররোচনামূলক প্রচারে কান না দেওয়ার।