রাজ্যে দেশি মদ বিক্রি কমেছে মাসে প্রায় ১ কোটি লিটার!

সাধারণ মানুষও এখন স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে সামান্য কিছু বেশি টাকা খরচ করে বিলেতি মদের দিকেই ঝুঁকছেন

রাজ্যে দেশি মদ বিক্রি কমেছে মাসে প্রায় ১ কোটি লিটার!

আরোহী নিউজডেস্ক: বিলেতি মদের ধাক্কায় রাজ্যে দেশি মদ বিক্রিতে ভাঁটা পড়েছে। রাজ্যের আবগারি দফতরের মারফৎ এই তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। আগে রাজ্যে প্রতি মাসে গড়ে চার কোটি লিটার দেশি মদ বিক্রি হত। কিন্তু সম্প্রতি, তা কমে দাঁড়িয়েছে ৩ থেকে ৩.২ কোটি লিটারে। অর্থাৎ মাসে প্রায় ১ কোটি লিটার কম বিক্রি হচ্ছে দেশি মদ। যদিও এর জেরে রাজ্যের আবগারি দফতরের আয়ে টান ধরেনি। কেন এমন হল? আবগারি কর্তাদের মতে, বর্তমান সময়ে পাশ্চাত্য সভ্যতার প্রতি একটু বেশি আকৃষ্ট আম বাঙালি, আর এই বিষয়ে পিছিয়ে নেই সুরা প্রেমিরাও।

মধ্যবিত্ত থেকে ধনী সবার আনন্দের আড্ডায় বিলিতি মদের আসর এখন অতি সামান্য বিষয়। কিন্তু এসবের মাঝে দেশি মদের বাজারও খুব একটা কম ছিল না। তবে গতবছরের শেষের দিকে বিলিতি মদের দাম কমে যাওয়ায় নিম্নবিত্ত থেকে মধ্যবিত্ত সকলেই বিলিতি মদের প্রতি ভালোবাসা বেড়েছে। অর্থাৎ দেশি মদ বা বাংলা মদের দামের থেকে মাত্র ৩০ টাকা বেশি দিলেই মিলছে কম অ্যালকোহলযুক্ত বিলিতি মদ। সুতরাং স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে সূরা প্রেমীরা এখন বিলিতি মদ পান করতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন এবং এতে অ্যালকোহলের পরিমাণও কম থাকছে। উপরের পরিসংখ্যান অন্তত এই তত্বই প্রমান করছে বলে মনে করছেন আবগারি কর্তারা।

আবগারি দফতর সূত্রে খবর, চলতি অর্থবর্ষে অর্থাৎ এপ্রিল  থেকে জুলাই মাস পর্যন্ত আবগারি শুল্ক আদায় হয়েছে প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকা। এই হারে শুল্ক আদায় হলে অর্থবর্ষের শেষে আবগারি শুল্ক প্রায় ১৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকায় পৌঁছে যাবে। যা গত বছরের তুলনায় প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা বেশি। কিন্তু এর মধ্যেই দেশি মদ বিক্রি কমেছে মাসে প্রায় ১ কোটি লিটার। উল্লেখ্য, রাজ্যের ভাঁড়ারে আবগারি শুল্ক থেকেই সবচেয়ে বেশি আয় আসে। অপরদিকে, সাধারণ মানুষও এখন স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে সামান্য কিছু বেশি টাকা খরচ করে বিলেতি মদের দিকেই ঝুঁকছেন। তাই দেশি মদ বিক্রি কমলেও রাজ্যের ভাঁড়ারে সেভাবে টান পরেনি। ফলে বিলেতি মদের বিক্রিতে বৃদ্ধি রাজ্যের কাছে আশার আলো হিসেবেই মনে করছেন ওয়াকিবহাল মহল।