সিআইডি-কে আটকানোর অভিযোগ অস্বীকার দিল্লি পুলিশের, বাধা গুয়াহাটিতেও

বার গুয়াহাটি বিমানবন্দরে  সিআইডির ইন্সপেক্টর-সহ চার জনকে আটক করার অভিযোগ উঠল অসম পুলিশের বিরুদ্ধে

সিআইডি-কে আটকানোর অভিযোগ অস্বীকার দিল্লি পুলিশের, বাধা গুয়াহাটিতেও

আরোহী নিউজডেস্ক: গত শনিবার হাওড়ার পাঁচলা থানা এলাকায় ঝাড়খন্ডের ৩ কংগ্রেস বিধায়ককে প্রায় ৪৯ লাখ টাকা-সহ গ্রেফতার করেছিল কলকাতা পুলিশ। পরে এই ঘটনার তদন্তভার হাতে নেয় রাজ্য পুলিশের সিআইডি। বুধবার সিআইডির একটি দল দিল্লিতে তল্লাশি অভিযান করতে যায়। কিন্তু অভিযোগ, রাজ্যের সিআইডি আধিকারিকদের তদন্ত ও তল্লাশিতে বাঁধা দেয় দিল্লি পুলিশ। সিআইডির দাবি, তাদের কাছে ওয়ারান্ট থাকা সত্ত্বেও তাদের বাধা দেওয়া হচ্ছে। গোয়েন্দা কর্তাদের আরও দাবি, এই ঘটনা আদালত অবমাননার সামিল। যদিও পশ্চিমবঙ্গের সিআইডির তোলা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করল দিল্লি পুলিশ। তাঁরা বিবৃতি জারি করে জানিয়ে দিল তাঁরা কাউকে আটকায়নি।

দিল্লি পুলিশের আরও দাবি, বাংলার তদন্তকারীদের সঙ্গে ইনভেস্টিগেটিং অফিসার ছিলেন না।তাই তল্লাশি পরোয়ানা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অপরদিকে জানা যাচ্ছে, দিল্লিতে ‘বাধা’র পর এ বার অসমে আটক করা হল বাংলার পুলিশকে। এবার গুয়াহাটি বিমানবন্দরে  সিআইডির ইন্সপেক্টর-সহ চার জনকে আটক করার অভিযোগ উঠল অসম পুলিশের বিরুদ্ধে। রাজ্য সিআইডির ওই দলটি গ্রেফতার হওয়া ঝাড়খণ্ডের তিন বিধায়কের সিসিটিভি ফুটেজ চাইতে গিয়েছিল গুয়াহাটি বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে। তখনই তাঁদের আটক করা হয় বলে অভিযোগ।

রাজ্যের সিআইডি আধইকারিকদের আটকানোর ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ করেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। তিনি জানান, 'এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক এবং অনভিপ্রেত ঘটনা'। তিনি আরও বলেন হাওড়াতে প্রচুর পরিমাণ টাকা নিয়ে যেতে গিয়ে গ্রেফতার হয়েছেন ঝাড়খন্ডের ৩ কংগ্রপেস বিধায়ক। এই বিষয়ে তদন্ত করতে গিয়েছিল সিআইডি, তাঁদের এইভাবে বাঁধা দেওয়া কখনোই সমর্থনযোগ্য নয়। কুণালের দাবি, স্বাভাবিক ভাবে তদন্ত করতে না দিলে বুঝতে হবে "ডাল মে কুছ কালা হ্যায়"। অপরদিকে এই ঘটনার প্রতিবাদে রাজ্যসভা থেকে ওয়াকআউট করেছেন তৃণমূল সাংসদরা।