দিলীপ ঘোষের প্রচারে বাধা দেওয়ার অভিযোগে ধুন্ধুমার আসানসোলে

দিলীপ ঘোষের প্রচারে বাধা দেওয়ার অভিযোগে ধুন্ধুমার আসানসোলে

আরোহী নিউজ ডেস্ক :  সামনেই রাজ্যের চার পুরনিগমের নির্বাচন। করোনা কালের নির্বাচনের জন্য ইতিমধ্যে কমিশনের তরফ থেকে এক গুচ্ছ নিয়ম জারি করা হয়েছিল, এবং জানানো হয়েছিল এই কঠোর পরিস্থিতিতে নিয়ম লঙ্ঘন করলে সেই রাজনৈতিক দলের প্রতি ব্যবস্থা নেবে কমিশন। আসানসোলের পুরভোট সামনেই। তার আগেই সেখানে চলছে প্রচার। আসানসোলের ৬৬নম্বর ওয়ার্ডে প্রচারে গিয়েছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সঙ্গে ছিলেন কয়েকজন নেতা, এবং তাঁর নিরাপত্তা রক্ষীরা। কিন্তু তাতেও পুলিশি বাধার সম্মুখীন হতে হয় তাকে।

প্রথমে তাঁদের পথ আটকায় প্রশাসন। পুলিশের দাবি, কোভিড বিধি মেনে যে ভাবে প্রচার করা উচিত তা দিলীপ ঘোষরা করছেন না। অনেক বেশি লোক নিয়ে প্রচার করছেন তিনি। রাস্তায় তখন দ্রুপ পায়ে কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন দিলীপ। সামনে এসে স্থানীয় পুলিশকর্মীরা দিলীপকে বলেন, এত জন নিয়ে প্রচার করা যাবে না। দিলীপ ঘোষ কার্যত কনুই দিয়ে ঠেলা দিয়ে পুলিশি বাধা সরিয়ে এগিয়ে যেতে থাকেন। পিছনে ছুটতে থাকে পুলিশও। এরপর ফের দিলীপের সামনে এসে পথ আটকায় পুলিশ। সেইসময়েই কর্মীসমর্থকদের নিয়ে রাস্তায় বসে পড়েন মেদিনীপুরের সাংসদ। খানিকক্ষণ তা চলার পর ওই জায়গা থেকে বরাকরের উদ্দেশে রওনা দেন দিলীপ ঘোষ। 

রাজ্য সরকারকে তোপ দেগে দিলীপ ঘোষ  বলেন, 'রাস্তা দিয়ে প্রচার করতে করতে যাচ্ছি। বাড়ি থেকে আমাদের ফুল ছুঁড়ে আমাদের স্বাগত জানাচ্ছেন মানুষ। ভিড় আমাদের দলের নয়। মানুষ স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে এসেছে। সবাই স্থানীয়। কিন্তু এই লোক দেখে তৃণমূলের অসুবিধা হচ্ছে। তাই পুলিশ দিয়ে আমাদের আটকানোর চেষ্টা হচ্ছে।' সঙ্গেই তিনি যোগ করেন, 'আমি পুলিশকে জানাই, আপনারা মানুষকে আটকান। আমরা তো পাঁচজন নিয়ে প্রচারে বেরিয়েছি। তো পুলিশ খানিকটা আটকানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু পুলিশ বলছে এত লোক নিয়ে যাওয়া যাবে না। এখানেই মিছিল শেষ করছি'।