পরিচালক সৃজিতের প্রশংসায় পঞ্চমুখ অভিনেতা পঙ্কজ ত্রিপাঠি 

পরিচালক সৃজিতের প্রশংসায় পঞ্চমুখ অভিনেতা পঙ্কজ ত্রিপাঠি 

আরোহী নিউজ ডেস্ক : 'সব বাস্তবই সিনেমা হতে পারে, তবে সব সিনেমা বাস্তব নয়'। কথার প্যাঁচেঘোটে এক মহৎ কথা বলেছিলেন এক মহান পরিচালক। সত্যিই তো, সব বাস্তব, খুটিনাটিকে পর্দায় দেখানো যায়। তেমনই এক কঠিন বাস্তবকে এবার সিনেমায় রূপান্তরিত করছেন পরিচালক সৃজিত মুখার্জি। ছবির নাম 'শেরদিল'। মুখ্য চরিত্রে রয়েছেন পঙ্কজ ত্রিপাঠি। এই প্রথম একসঙ্গে কাজ করছেন সৃজিত ও পঙ্কজ ত্রিপাঠি। 
বাঙালি পরিচালকের প্রশংসায় পঞ্চমুখ অভিনেতা। 

গত ১৮ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে সৃজিতের আগামী ছবি শেরদিলের শুটিং। বলিউডে পরিচালনার অঙ্কে শেরদিল তার রিন নম্বর ছবি। পরিচালকের প্রশংসা করে পঙ্কজ জানান, 'আলাদা করে সৃজিতের পরিচয় দেওয়ার প্রয়োজন নেই। সৃজিতের কাজই ওঁর পরিচয়। ‘শেরদিল’-এর প্রস্তাব দেওয়ার পরে আর একটুও সময় নষ্ট করিনি আমি। সঙ্গে সঙ্গে রাজি হয়ে যাই। প্রত্যেক চরিত্রকে বিশ্বাসযোগ্য করে তোলার ক্ষমতা রাখেন সৃজিত। এটিই তাঁর বিশেষত্ব'। 

এবার আসা যাক গল্পের প্রেক্ষাপটে। ২০১৭ সালে উত্তর প্রদেশের বরেলির কাছে পিলিভিটে বাঘের থাবায় মৃত্যু হয় সাত প্রবীণের। নড়েচড়ে বসে তদন্ত শুরু করে বন দফতর। তদন্তে জানা যায় এক হাড়হিম করা তথ্য। 

মোটা টাকা ক্ষতিপূরণের লোভে গ্রামের মানুষেরা পরিবারের বয়স্কদের নাকি রেখে আসত পিলিভিট ব্যাঘ্র প্রকল্পে। যাতে বাঘের খাবারে পরিণত হন ওই বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা। ক্ষতবিক্ষত দেহ ফের নিয়ে আসা হত প্রকল্প এলাকার বাইরে। যাতে মৃতদেহ দেখিয়ে প্রশাসনের কাছ থেকে আদায় করা যায় ক্ষতি পূরণ। এই প্রেক্ষাপটেই তৈরি হচ্ছে ছবি। প্রসঙ্গত, বাঙালি পরিচালকের ছবিতে পঙ্কজ ছাড়াও রয়েছেন নীরজ কবি এবং সায়নী গুপ্ত।