ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড নিউ ইয়র্কে,৯ শিশু সহ মৃত ১৯

ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড নিউ ইয়র্কে,৯ শিশু সহ মৃত ১৯

আরোহী নিউজ ডেস্ক:  নিউ ইয়র্কের বহুতলে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড। ৯টি শিশু-সহ কমপক্ষে ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।  নিউইয়র্কের মেয়র এরিক অ্যাডামস জানিয়েছেন, আরও ৩২ জনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

দমকল বিভাগের কমিশনার ড্যানিয়েল নিগ্রো বলেছেন, ১৯ তলা ভবনের প্রতিটি তলেই হতাহতের সন্ধান পাওয়া গেছে। প্রতিটি তলায় কেউ না কেউ মৃত অথবা অসুস্থ। ভয়ঙ্কর ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছে গোটা বাড়ি। ফলে দমকল কর্মীরা উদ্ধার করতে হিমশিম খাচ্ছেন। ড্যানিয়েল নিগ্রোর দাবি, গত ৩০ বছরে নিউ ইয়র্কে অগ্নিকাণ্ডে  এক সঙ্গে এত মৃত্যুর খতিয়ান দেখা যায়নি।

দমকল কর্মীদের দাবি, রবিবার স্থানীয় সময় রাত ১১ টা নাগাদ ব্রঙ্কস অ্যাপার্টমেন্ট নামক ওই বহুতলের দ্বিতীয় এবং তৃতীয় তলায় আগুন লেগেছিল। প্রায় ২০০ দমকল কর্মী আগুন নেভানোর কাজ শুরু করেন। প্রাথমিক ভাবে তাঁদের ধারণা বৈদ্যুতিক হিটারে কোনো ত্রুটির কারণেই আগুন লেগেছিল ওই বহুতলে। আগুন দু’টি তলায় লাগলেও কালো বিষাক্ত ধোঁয়া বহুতলের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে।

প্রাথমিক ভাবে দমকল কর্মীরা জানিয়েছেন যে ঘরে প্রথম আগুন লেগেছিল তার দরজা জানলা দিয়ে ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়ে প্রতিটি তলায়। ব্রঙ্কসের যে এলাকায় এই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদের বেশির ভাগই গাম্বিয়া থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন বলে মনে করা হচ্ছে।

ড্যানিয়েল নিগ্রো বলেন,‘বহু মানুষ পড়েছিলেন বহুতলের সিঁড়িতে। সকলেই মারা গিয়েছেন দম বন্ধ হয়ে। অনেককে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা গিয়েছে। কিন্তু তাঁদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।'

ড্যানিয়েলের দাবি,পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছে বহুতলের বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ার পর। এখনও পর্যন্ত জানা গিয়েছে ৬৩ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাঁদের মধ্যে ৩২ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। ১৩ জন আশঙ্কাজন বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে।

নিউ ইয়র্কের মেয়রে এরিক অ্যাডামস বলেন, ‘মৃত্যুর সংখ্যায় আমরা স্তম্ভিত। এমন ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা আগামী দিনেও আমাদের শহরে যন্ত্রণা ও হতাশার স্মৃতি হয়ে থাকবে।'

নিউ ইয়র্কের গভর্নর ক্য়াথি হোকল রবিবারের ঘটনাকে ‘দুর্ভাগ্যের রাত’ আখ্যা দিয়ে জানান, হতাহতদের পরিবারের জন্য সরকারি ভাবে ত্রাণের ব্যবস্থা করা হবে। নাগরিকদের পুনর্বাসন, পারলৌকিক ক্রিয়া প্রভৃতির জন্য অর্থ সাহায্য করা হবে বলে তিনি জানান।

 এই ভয়াবহ দুর্ঘটনার প্রেক্ষিতে মেয়র বলেন, ক্ষতিগ্রস্তরা যে দেশেরই নাগরিক হোন না কেন, এ দেশে থাকার ক্ষেত্রে তাঁদের নথিপত্র যেমনই থাকুক না কেন কর্তৃপক্ষের কাছে সাহায্য পাবেন। এই ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা হবে না বলে তাঁর আশ্বাস।

নিউ ইয়র্ক শহরের মধ্যে স্বল্প ব্যয়ের এমন আবাসনে নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিল এ দিনের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড। অন্যদিকে দিন কয়েক আগেই ফিলাডেলফিয়ায় একটি বহুতলে অগ্নিকাণ্ডে ৮ শিশু-সহ ১২ জনের মৃত্যু হয়েছিল।