রেলের নতুন চমক! বেঙ্গালুরু থেকে হায়দরাবাদ মাত্র আড়াই ঘন্টায়

ভারতের দুই গুরুত্বপূর্ণ আইটি হবে বেঙ্গালুরু ও হায়দরাবাদ যুক্ত হবে সেমি হাইস্পিড রেল করিডরে

রেলের নতুন চমক! বেঙ্গালুরু থেকে হায়দরাবাদ মাত্র আড়াই ঘন্টায়

আরোহী নিউজডেস্ক: কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকার ভারতীয় রেলকে আধুনিক ও ঝাঁ চকচকে করতে উঠে পড়ে লেগেছে। মুম্বই-আহমেদাবাদ হাইস্পিড বুলেট ট্রেন প্রকল্পের কাজ চলছে জোর কদমে। এরমধ্যেই প্রায় তৈরি হয়ে গিয়েছে দিল্লি-মিরঠ  সেমি হাইস্পিড র‍্যাপিড রেল ট্রানজিট করিডর। পাশাপাশি রেলের তরফে ২০০টি বন্দে ভারত ট্রেনের জন্য দরপত্র চাওয়া হয়েছে। যা ১৬০ কিমি প্রতি ঘন্টায় মোট ৩০২টি শহরকে যুক্ত করবে বলে জানিয়ে রেখেছে রেলমন্ত্রক। প্রধানমন্ত্রী গতি শক্তি (PM Gati Shakti) প্রকল্পের আওতায় এই প্রকল্পগুলি নেওয়া হয়েছে। এবার একই প্রকল্পে নতুন চমক দিল ভারতীয় রেল। ভারতের দুই গুরুত্বপূর্ণ আইটি হবে বেঙ্গালুরু ও হায়দরাবাদ যুক্ত হবে সেমি হাইস্পিড রেল করিডরে।

রেল সূত্রে খবর, বেঙ্গালুরুর ইয়েলাহাঙ্কা স্টেশন থেকে হায়দরাবাদের সেকেন্দ্রবাদ পর্যন্ত নতুন রেল লাইন বসানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী গতি শক্তি প্রকল্পের আওতায় এই রেল লাইন বসানোর জন্য বরাদ্দ করা হচ্ছে। এরজন্য খরচ ধরা হয়েছে ৩০,০০০ কোটি টাকা। রেলের পরিকল্পনা অনুযায়ী, এই সেমি-হাই-স্পিড রেলওয়ে ট্র্যাকের দু'পাশে দেড় মিটার উচ্চতার দেওয়াল দেওয়া হবে। এরফলে কোনও প্রতিকূলতা ছাড়াই ট্রেনটি প্রায় ২০০ কিমি গতিতে ছুটতে সক্ষম হবে। যদিও প্রাথমিকভাবে ট্রেনগুলি ১৬০-১৮০ কিমি গতিতে চালানো হবে বলেই জানা গিয়েছে।

রেলের পরিকল্পনা, এই দুই শহরের মধ্যে নতুন রেল পথে কিছুটা দূরত্ব কমানো হবে। বর্তমানে বেঙ্গালুরু থেকে হায়দরাবাদ শহরের মধ্যে যে রেলপথ রয়েছে, তার দূরত্ব ৬২২ কিমি। এই পথ পেরোতে সাধারণ মেল-এক্সপ্রেস ট্রেনগুলির সময় লাগে গড়ে ১০-১১ ঘন্টা। নতুন সেমি হাইস্পিড করিডর তৈরি হয়ে গেলে এই দূরত্ব মাত্র আড়াই ঘন্টায় পার করা যাবে।

বর্তমানে রেলমন্ত্রক যে ২০০টি বন্দে ভারত ট্রেন তৈরির বরাত দিয়েছে। সেগুলি আগামী বছর থেকেই রেলের হাতে আসতে শুরু করবে। নতুন প্রজন্মের এই ইঞ্জিন বিহীন  সেমি হাইস্পিড বন্দে ভারত ট্রেনগুলি ১৮০ কিমি প্রতি ঘন্টায় চালানো যাবে। বেঙ্গালুরু থেকে হায়দরাবাদেরমধ্যে নতুন রেল করিডরেও এই গতিতে ট্রেন ছুটবে বলেই জানা যাচ্ছে। ফলে ভারতের দুই গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রযুক্তি শহরে নিয়মিত যাতায়াতকরি যাত্রীদের প্রভূত সুবিধা হবে।