চতুর্থী থেকেই ঠাকুর দেখার ভিড়, পুজোয় জনজোয়ার সামাল দিতে তৎপর কলকাতা পুলিশ 

কলকাতার সমস্ত পুজো মণ্ডপের প্রস্তুতি একেবারেই শেষ। সকলই দর্শনার্থীদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুত

চতুর্থী থেকেই ঠাকুর দেখার ভিড়, পুজোয় জনজোয়ার সামাল দিতে তৎপর কলকাতা পুলিশ 

আরোহী নিউজডেস্ক: দুর্গাপুজো শুরু হয়ে গিয়েছে রাজ্যের সর্বত্র।  গত ২ বছর করোনার কবলে স্তব্ধ ছিল গোটা বিশ্ব। এবছর করোনার চোখ রাঙানি কমতে সকলেই উৎসবের আনন্দে মেতে উঠেছে।  বৃহস্পতিবার চতুর্থী, আজ থেকেই জনজোয়ার শুরু হয়েছে কলকাতার বিভিন্ন পুজো মণ্ডপে। সকাল থেকেই শহরতলির লোকাল ট্রেনগুলিতে লাগামছাড়া ভিড়। যদি বৃষ্টিতে ঠাকুর দেখা মাটি হয়? তাই চতুর্থীর সকালেই অনেকে বেরিয়ে পড়েছেন কলকাতার উদ্দেশ্যে। ফলে এদিন থেকেই জনজোয়ারে ভাসতে চলেছে তিলোত্তমা। কলকাতার সমস্ত পুজো মণ্ডপের প্রস্তুতি একেবারেই শেষ। সকলই দর্শনার্থীদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুত।  পুজোর সময় কলকাতার জনজোয়ারের ভিড় সামল দিতে  কলকাতা পুলিশ বিশেষ ভাবনা নিয়ে তৎপরতার সঙ্গে কাজে নামতে চলেছেন।  

চতুর্থী থেকে মানুষের ভিড় এবং যান নিয়ন্ত্রণে মোট ৯ হাজার পুলিশ মোতায়েন করছে লালবাজার। তার মধ্যে চার হাজার পুলিশকে যান নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে নিয়োগ করা হবে বলে জানানো হয়েছে। পুলিশ বাহিনীকে সহযোগিতা করতে নিয়োগ করা হয়েছে  ১০ হাজার 'অস্থায়ী' হোমগার্ড। শহরের সমস্ত বড় মোড়গুলিতে থাকবেন অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার এবং ইনস্পেক্টর পদমর্যাদার পুলিশ অফিসাররা। গোটা বিষয়টি কন্ট্রোল রুম থেকে তদারকি করবেন লালবাজারের পদস্থ কর্তারা। চতুর্থী থেকেই শহরের বিভিন্ন রাস্তায় পার্কিং বন্ধ করে দেওয়া হবে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল রাসবিহারী অ্যাভিনিউ। এখানে পার্কিং নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

সমস্ত বড় পুজো প্রাঙ্গণে থাকছে পুলিশের অস্থায়ী কিয়স্ক। দর্শনার্থীদের সহায়তার জন্যও রাস্তায় থাকবেন পুলিশের বিশেষ টিম। শহরের সমস্ত বড় পুজোর প্রবেশ পথ ও বাহির পথে হাজির থাকবেন তাঁরা। শহরের বিভিন্ন রাস্তায় নাকা চেকিং করবে ১৬টি টিম। এছাড়া কলকাতা পুলিশের ইউনার্স বাহিনী বা মহিলা পুলিশের বিশেষ দল ছড়িয়ে থাকবেন শহর কলকাতায়। এদের কাজ মূলত মহিলাদের উপর ইভটিজিং ও শারীরিক হেনস্থা আটকানো।