কিশোরের জন্মদিনে আরোহী নিউজকে একান্ত সাক্ষাৎকার দিলেন কুমার শানু

ছোটবেলা থেকে গান গাইতাম তখন থেকেই আমার গলার সঙ্গে কিশোর কুমারের গানের স্টাইল সামান্য মিলতো

কিশোরের জন্মদিনে আরোহী নিউজকে একান্ত সাক্ষাৎকার দিলেন কুমার শানু

আরোহী নিউজডেস্ক: আজ ৪ আগষ্ট, কিংবদন্তি সঙ্গিতশিল্পী কিশোর কুমারের জন্মদিন। দেশজুড়ে এদিন কিশোর কুমারকে গানে গানে শ্রদ্ধাঞ্জলি দিচ্ছেন অপামর কিশোর ভক্ত। আরোহী নিউজের সিনিয়র নিউজ এডিটর যশবন্ত বিশ্বাস টেলিফোনে যোগাযোগ করেছিলেন বলিউডের অন্যতম নক্ষত্র, গায়ক কুমার শানুর সঙ্গে। তিনিই আমাদের শোনালেন কিশোর কুমার তাঁর জীবনে কতখানি জুড়ে আছেন।

প্রশ্নঃ কিশোর কুমার তো আপনার আইডল, এই বিষয়ে আজ কী বলবেন?

শানুঃ কিশোর কুমার সম্পর্কে কি বলবো, আমি সারাজীবন কিশোরদাকে ফলো করে এসেছি। আমি যখন ছোটবেলা থেকে গান গাইতাম তখন থেকেই আমার গলার সঙ্গে কিশোর কুমারের গানের স্টাইল সামান্য মিলতো। এর পর থেকেই আমি কিশোরদাকে ফলো করেছি। বলতে পারো আমার মূল আইডল আমার বাবা এবং বাবার পরেই কিশোরদা। ওনার থেকে আমি অনেককিছু শিখেছি। কিশোরদার স্টাইল অফ সিঙ্গিং, কিশোরদার অ্যাক্টিং, কিশোরদার থ্রোইং, বুঝতেই পারছো অনেককিছু শিখেছি কিশোরদার কাছ থেকে। পরবর্তীকাল কিশোরদার প্রচুর গান আমি নিজের মতো করে গেয়েছি। ওনার থেকে যা যা শিখেছি তা পরবর্তীকালে আমার অনেক কাজে লেগেছে। বলতে পারেন আশিকী সিনেমা থেকে আমি নিজের গায়েকি আলাদা করেছি, কিন্তু তা হলেও কিশোরদা আমার কাছে সব সময় পথপ্রদর্শক।

প্রশ্নঃ তুমি যখন ছোট ছিলে তখন কোন গানগুলো বেশি আকর্ষণ করত তোমাকে?

শানুঃ কিশোরদা সব ধরণের গানই খুব দরদ দিয়ে গাইতেন। তাই ওনার বেশিরভাগ গানই সকলের ভালো লাগে, আমার ক্ষেত্রেও তাই। কিশোরদার যে গানগুলি সুপারহিট সেই সমস্ত গানই আমি ছোটবেলায় শুনতাম। এরকম একটি-দুটি গানের কথা আলাদা করে বলা সম্ভব নয়। তবে একটা কথা বলতে পারি, ওনার গলার যে টোনার কোয়ালিটি সেটা ভগবান প্রদত্ত, তা কারও হবে না বলেই আমার মনে হয়। উনি এমন একজন গায়ক ছিলেন, যার গানেই এত অ্যাক্টিং, এত বেশি ফিলিংস যে কি বলবো। সবচেয়ে বড় ব্যাপার, ওনার গানে শব্দের নিখুদ উচ্চারণ সত্যিই শেখার মতো বিষয়। কিশোরদার গানের এই বিষয়গুলিই আমি ছোটবেলা থেকে ফলো করেছি।

প্রশ্নঃ আজকের প্রজন্ম সচিন দেব বর্মণ, রাহুল দেব বর্মণ বা কিশোর কুমারের মতো লেজেন্ডদের পাচ্ছেন না, আপনার কি মনে হয়?

শানুঃ অবশ্যই আমরা মিস করি সেই সব মানুষদের, যারা অসাধারণ মিউজিক করতেন। আমরা যারা গানের জগতের সঙ্গে যুক্ত, তাঁরা প্রত্যেকেই মিস করি সেই সমস্ত মিউজিক ডিরেক্টর, গীতিকারদের। আর মিস করি সেই উর্দু শায়েরি, যা এক একটা গল্প শোনাতো গানের ভাষায়। বর্তমানের গানগুলিতে মিউজিকটাকেই বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়। গায়ক বা গীতিকারদের ততটা প্রাধান্য দেওয়া হয় না। কিন্তু আমরা যখন গান গেয়েছি, অর্থা আমাদের সময় গায়কদের ওপরেই নির্ভর করতো গান হিট হবে কি না। তবে এখনকার গায়কদের মধ্যে অরিজিৎ সিং খুব ভালো গায়। ওর মধ্যে অনেক সম্ভাবনা রয়েছে, ওকে যদি আরও ভালোভাবে ব্যবহার করা যায় তাহলে আরও বেটার হবে।

প্রশ্নঃ কিশোর কুমার আরও কত বছর এভারগ্রীন থাকবে বলে কুমার শানু মনে করে?

শানুঃ আমার মনে হয় কিশোরের মতো একজন শিল্পীকে এত তাড়াতাড়ি ভুলে যাওয়া সম্ভব নয়। যে কোনও শিল্পী তাঁর সৃষ্টির মাধ্যমে আজীবন বেঁচে থাকে। আর সেই শিল্পী যদি কিশোর কুমার হয় তবে সেটা আগামী ১০০-২০০ বছর অনায়াসে মানুষের হৃদয়ে থেকে যাবেন।