তরুণ মজুমদারের শ্রদ্ধার্ঘ্যে গোর্কি সদনে প্রদর্শনী

৪ঠা জুলাই, ২০২২, অভিভাবক হারিয়েছিলেন গোটা টলিউড

তরুণ মজুমদারের শ্রদ্ধার্ঘ্যে গোর্কি সদনে প্রদর্শনী

আরোহী নিউজডেস্ক: চলতি বছরই আমরা হারিয়েছি কিংবদন্তি চিত্র পরিচালক তরুণ মজুমদারকে। তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে কলকাতার গোর্কি সদনে আয়োজিত হল এক প্রদর্শনীর। যেখানে প্রদর্শিত করা হয় তাঁর ব্যবহৃত জিনিস।  
তারিখটা ৪ঠা জুলাই, ২০২২, অভিভাবক হারিয়েছিলেন গোটা টলিউড। চিরনিদ্রায় চলে গিয়েছিলেন তরুণ মজুমদার। ৯১ বছর বয়সে না ফেরার দেশে চলে যান এই কিংবদন্তী পরিচালক। বাঙালির অন্তরের সুখ দুঃখের কাহিনী যার ছবিতে ফিরে এসেছে বারবার। তাঁকেই শ্রদ্ধা জানাতে কলকাতার গোর্কি সদনে এক প্রদর্শণীর আয়োজন করা হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন পরিচালক গৌতম ঘোষ, শমীক বন্দ্যোপাধ্যায়, বিপ্লব চট্টোপাধ্যায়, মনোজ মিত্র শিলাদিত্য সেন সহ অনেকে। 


তরুণ মজুমদার চলে যাবার পর টলিউডের সেকাল থেকে একালের তারকাদের সকলের স্মৃ্তিতেই উঠে এসেছে একটাই কথা। তিনি শুধুমাত্র একজন পরিচালক ছিলেন না, ছিলেন এক ভাল অভিভাবক ও শিক্ষক। যাত্রিকের শ্যুটিং সেটেই স্বয়ং মহানায়ক হঠাৎই তাঁকে নিয়ে একটি ছবি করার কথা তরুণ মজুমদারকে বলেন। দর্শকরা পায় উত্তম-সুচিত্রার ‘চাওয়া-পাওয়া’। এরপরে পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তরুণ পরিচালককে। একের পর এক কালজয়ী ছবি যেমন বালিকাবধূ, কাঁচেরস্বর্গ, শ্রীমান পৃথ্বীরাজ, ফুলেশ্বরী, দাদারকীর্তি, আলো, চাঁদের বাড়িসহ আরও অনেক উপহার। আর সেই সব ছবির পোস্টার, স্ক্রিপ্ট, পোশাকের ডিজাইন সহ আরও অনেক  কিছু প্রদর্শিত হয়েছে এই প্রদর্শনীতে। পাশাপাশি তরুন মজুমদারের ব্যবহৃত অনেক জিনিস যেমন দূরবীণ, চশমা, পেন , খাতা সবকিছুই সাজানো আছে সেখানে।


তাঁর ব্যবহৃত জিনিস দেখে নস্টালজিক হয়ে উঠলেন প্রদর্শনীতে উপস্থিত চলচ্চিত্র প্রেমীরা। এক নিমেষেই তাঁরা পৌঁছে গেলেন বাংলা চলচ্চিত্রের স্বর্ণযুগে। জীবন্ত হয়ে উঠল কিংবদন্তি পরিচালকের জীবনের বহু অজানা মুহুর্ত। এইভাবেই হয়ত চিরজীবন বেঁচে থাকা যায় মানুষের হৃদয়ে।