আজ থেকে কলকাতার নন- এসি মেট্রোর আনুষ্ঠানিক বিদায়, চিরবিদায়ে গীতা পাঠ

আজ থেকে কলকাতার নন- এসি মেট্রোর আনুষ্ঠানিক বিদায়, চিরবিদায়ে গীতা পাঠ

আরোহী নিউজ ডেস্ক :  কলকাতা মেট্রো মানে আপামর বাঙালির কাছে নস্টালজিয়া। আর সেই মেট্রোতেই এক সময়ে ছিল শুধুমাত্র নন- এসি রেকই। সময়ের সাথে সাথে একটা দুটো করে বাড়তে বাড়তে আজ উত্তর-দক্ষিণ সংযুক্তকারী মেট্রোতে নন- এসি রেকের সংখ্যা শূন্য হতে চলেছে। আজ, রবিবার আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় নেবে কলকাতা মেট্রোর নন–এসি রেকটি। ১৯৮৪ সালের ২৪ অক্টোবর দেশের মধ্যে প্রথম কলকাতায় মেট্রো চালু হয়েছিল। ছুটির দিনের সকালেই গীতা পাঠের মধ্যে দিয়ে চিরবিদায় জানানো হবে নন–এসি মেট্রোর শেষ রেকটিকে। কলকাতা মেট্রোর ৩৭তম প্রতিষ্ঠা দিবসে চিরবিদায় জানানো হবে নর্থ–সাউথ করিডরে দীর্ঘদিন পরিষেবা দেওয়া শেষতম নন–এসি রেকটিকে।

মেট্রো সূত্রে খবর, আজ পুরনো কর্মীরা  যাঁরা এই নন–এসি রেক দিয়ে মেট্রো পরিষেবা দেওয়া শুরু করেছিলেন তারা নিজেদের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরবেন। রবিবার  বিকেল পর্যন্ত এই নন–এসি রেকটি রাখা থাকবে। তাই আজ মহানায়ক উত্তমকুমার মেট্রো স্টেশনে (টালিগঞ্জ) বিশেষ এক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়েছে। স্মৃতি বন্দী হয়ে থাকবে কলকাতার নন–এসি মেট্রো রেক।

কখনও আকাশি–নীল, কখনও হলুদ–লাল, আবার কখনও সাদা–কালো রঙের মেট্রোরেল দেখেছেন বাংলার মানুষ। আর সেই বাতিল হতে চলা একটি নন–এসি রেকের ভিতরে এক প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। রেকটির মধ্যে মেট্রোর ইতিহাস, বর্তমান ও ভবিষ্যতের একাধিক কর্মকাণ্ড তুলে ধরা হবে। জন্মলগ্নে এই নন–এসি মেট্রো রেকগুলি চেন্নাই থেকে কলকাতায় এসেছিল।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের জেরে দীর্ঘদিন মেট্রো রেল পরিষেবা বন্ধ ছিল। তারপর ই–পাস কিংবা স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত যাত্রী নিয়েই তা চালু হলেও ২০২০ সালের শেষদিক থেকেই সংশ্লিষ্ট রুটে নন–এসি রেক পরিষেবা কার্যত বন্ধ হয়ে গিয়েছে। তবে জরুরি প্রয়োজনে বের করা হবে এই নন–এসি মেট্রোকে। 

এখন যাত্রী পরিষেবায় এসি রেক ব্যবহার করা হচ্ছে। যদিও রাতে লাইন পরীক্ষা, স্টাফ স্পেশাল, সিগন্যাল চেকিং, নয়া লাইনে দৌড়ানো সবটাই সারবে সেই নন–এসি মেট্রো রেক। আপাতত সিদ্ধান্ত, মেট্রোর ২২টি এসি রেক দক্ষিণেশ্বর থেকে কবি সুভাষ পর্যন্ত দৌড়বে। আর নন–এসি রেকগুলি রাখা থাকছে নোয়াপাড়া কারশেডে।