পুজোর আনন্দে শরীর যেন বাধ না সাধে, তাই সঙ্গে রাখুন এই ওষুধগুলি...

রাত জেগে ঠাকুর দেখতে গিয়ে সর্দি-কাশির সমস্যাও হতে পারে। পুজো মানেই কিছুটা অনিয়ম

পুজোর আনন্দে শরীর যেন বাধ না সাধে, তাই সঙ্গে রাখুন এই ওষুধগুলি...

আরোহী নিউজডেস্ক: পুজো মানেই সীমাহীন মজা, পুজো মানেই চুটিয়ে খাওয়া দাওয়া। তবেই খাওয়ার শরীরে সহ্য না হলে গ্যাস অম্বল হওয়া খুবই স্বাভাবিক। অন্যদিকে রাত জেগে ঠাকুর দেখতে গিয়ে সর্দি-কাশির সমস্যাও হতে পারে। পুজো মানেই কিছুটা অনিয়ম। তবে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়তে হয় যখন পুজোর সময় ওষুধের দোকানগুলো বন্ধ থাকে। তাই হঠাৎ শরীর খারাপ হলে যেন কোন বড় বিপত্তিতে না পড়তে হয় তাই হাতের কাছে রাখতে হবে, কিছু জরুরি ওষুধ।

জ্বরের ওষুধ


পুজো দেখতে বেরিয়ে মাঝেমধ্যেই ঘেমে নেয়ে একাকার দশা হয়। ঘাম গায়ে বসে গেলে অল্প জ্বরও আসতে পারে আবার কোন কোন সময় গা হালকা ম্যাজম্যাজো করে। তাই বাড়িতে প্যারাসিটামল জাতীয় ওষুধ রাখতেই হবে

কাশির ওষুধ


জ্বর ছাড়াও যে সমস্যা দেখা দিতে পারে তা হলো কাশি। বিশেষত শিশুদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি দেখা যায় এবং এই কাশির ফলে শিশুদের বেশ কষ্ট হয়। তবে এর ফলে পুজোর দিনগুলো যেন মাটি না হয়ে যায় তার জন্য বাড়িতে মজুদ রাখুন 'কাফ সিরাপ'

গ্যাস-অম্বলের ওষুধ


পুজো মানেই কিছুটা অনিয়ম আর সেই অনিয়মই দেখা যায় খাওয়া-দাওয়ার ক্ষেত্রে। বিভিন্ন ধরনের ফাস্টফুড বা রাস্তার খাওয়ার খেলে অথবা রাত জেগে ঠাকুর দেখতে গিয়ে অনিয়ম হলে, পেট খারাপ হতেই পারে। সুতরাং বাড়িতে মজুদ রাখতে হবে অম্বল ও বমির ওষুধ। ভুল খাবারের ফলে অনেক সময় পেট খারাপের সমস্যা ও হয় এবং শরীর থেকে প্রচুর পরিমাণে জল ও খনিজ লবণ বেরিয়ে যায়। তাই বাড়িতে ডায়রিয়ার ওষুধের সাথে কিছু ওআরএস  কিনে রাখতে হবে।

মাথাব্যথার ওষুধ


পুজোতে সকলেই চাই রাত জেগে আড্ডা দিতে তবে তারপরেই শুরু হতে পারে মাথা ব্যথা। পুজোর চারটি দিন এই মাথাব্যথার কারণে যেন মাটি না হয়ে যায় তাই বাড়িতে মজুদ রাখুন মাথাব্যথার ওষুধ।

ব্যান্ডেড 

এছাড়া পূজোতে নতুন জুতো পড়ে অনেকেরই পা কেটে যেতে পারে বা পায়ে ফোসকা পড়ে তার জন্য বাড়িতে ব্যান্ডে ড এবং অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম রাখতে হবে । তবে মনে রাখতে হবে ওষুধ খাওয়ার ক্ষেত্রে চিকিৎসকের  পরামর্শ আবশ্যিক। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই ওষুধ খাবেন।