অধরা ভালোবাসাই 'অল্প হলেও সত্যি'র মূল বাঁধন

অধরা ভালোবাসাই 'অল্প হলেও সত্যি'র মূল বাঁধন

আরোহী নিউজ ডেস্ক : যেভাবে জীবনকে আমরা চাই সেভাবে পাই কি! কিছু ফাঁকি, না বলা টুকরো টুকরো কথারা থেকে যায়। হয়তো কোনও চিলেকোঠার কোনায় কিংবা ছেলেবেলার ফেলে দেওয়া কোনো বাদামী ঠোঙায়! তবে ভালোবাসার টান কিংবা অদৃশ্য সুতো থেকেই যায়। স্বপ্ন দেখার সাহস হারালেও থেকে থায় জেদ। মরে গিয়েও বেঁচে থাকে হাজারো জমানো স্মৃতি। আর এই সব নিয়েই সম্পর্ক, সমীকরণ, বন্ধুত্ব সব মিলিয়ে সৌম‌্যজিৎ আদকের নিখাদ প্রেমের ছবি ‘অল্প হলেও সত‌্যি'। 

চারটে মানুষ তাদের সম্পর্কের কথা বলে এই ছবি। গুঞ্জন রায় অ‌্যাড এজেন্সিতে কাজ করে। তার বিয়ে ঠিক হয়েছে অফিসের সিনিয়র কলিগ সিদ্ধার্থর সঙ্গে। গুঞ্জন মানে সৃজনী মিত্র এবং সিদ্ধার্থ মানে ঋষভ। বিয়ের আগে তারা লিভ ইন করেন। 

পাশপাশি অমৃতা মানে দর্শনা বণিক, যার স্বপ্ন ছিল ডাক্তার হওয়ার। কিন্তু সে বেসরকারি হাসপাতালের নার্স। পরিবারের সঙ্গে ভাড়াবাড়িতে থাকে। বাড়িওয়ালা অর্জুন মানে সৌরভ দাস। বাংলার শিক্ষক ছিল। তার ক্যান্সার থাকে। অর্জুন আর অমৃতার আশ্চর্য নৈকট্য তৈরি হয়ে যায়। কিন্ত ঘটনা চক্রে অতীতে দর্শনার সঙ্গে ঋষভের একটা টান থাকে। আর সৌরভের সঙ্গে সৃজনীর একটা না বলা সম্পর্ক থাকে। এই নিয়েই এগোয় গল্প। তবে অনুভব টান থাকলেও অতীত প্রেম বর্তমানে প্রভাব ফেলে না। বরং মানুষের আত্মিক টান অনেক বেশি হয় তার প্রমাণ পাওয়া যায়। 

গল্পের ভাবনাটা ভাল । সৌরভ-সহ অন্যান্যদের অভিনয় মন কাড়ার মত। অমিত-ঈশানের মিউজিক ভাল। সুব্রত বারিষের লেখা, সাহানা বাজপেয়ীর গানটা একটা অনবদ্য কাজ। প্রসঙ্গত, সৌম‌্যজিৎ আদকের এটিই প্রথম ছবি। পাশাপাশি রূপ প্রোডাকশনেরও তরফে 'অল্প হলেও সত্যি'র পর আরও অনেক ভালো ছবি আসবে বলে আশা রাখা যায়।