৬০-এ পা বুম্বার, জন্মদিনে ফিরে দেখা প্রসেনজিৎকে

আধুনিক বাংলা চলচ্চিত্রের সবচেয়ে জনপ্রিয় নাম প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়

৬০-এ পা বুম্বার, জন্মদিনে ফিরে দেখা প্রসেনজিৎকে

আরোহী নিউজডেস্ক: আধুনিক বাংলা চলচ্চিত্রের সবচেয়ে জনপ্রিয় নাম প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। বাংলা সিনেমায় তাঁর অবদান সম্পর্কে নতুন করে কিছু বলার নেই। যিনি বলিউডের প্রবীণ অভিনেতা বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের ছেলে। সুজিত গুহ পরিচালিত একটি অত্যন্ত সফল রোমান্টিক সিনেমা 'অমর সঙ্গী'-তে বিজয়া পণ্ডিতের বিপরীতে প্রসেনজিতের যুগান্তকারী ভূমিকা এসেছিল। প্রসেনজিৎ ১৯৯০ সালে ডেভিড ধাওয়ান পরিচালিত আঁধিয়া সিনেমার মাধ্যমে বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেন। যেখানে তিনি মুমতাজের ছেলের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।

বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রে কাজ করার পর, প্রসেনজিৎ সমান্তরাল চলচ্চিত্রে ঋতুপর্ণ ঘোষের 'চোখের বালি' দিয়ে আত্মপ্রকাশ শুরু করেন। তারপর থেকে দোসর, জাতিশ্বর, শঙ্খচিল, সব  চরিত্র কাল্পনিক-সহ অসংখ্য চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। তিনি আবার বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রে ফিরে আসেন। পরে ২০০৬ সালে ঋতুপর্ণ ঘোষের সঙ্গে দোসরের জন্য সহযোগিতা করেন। অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার এবং জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার - বিশেষ জুরি পুরস্কার রয়েছে তার জুলিতে।

২০১০ সালে সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের অটোগ্রাফ সিনেমায় অরুণ চ্যাটার্জির চরিত্রে অভিনয় করে প্রসেনজিৎ আরেকটি সাফল্য পান। যার জন্য তিনি সেরা অভিনেতা বিভাগে মাহিন্দ্রা ইন্দো-আমেরিকান আর্টস কাউন্সিল চলচ্চিত্র উৎসবে মনোনীত হন। তিনি গৌতম ঘোষের পরিচালনায় মনের মানুষ এবং জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী চলচ্চিত্র জাতিশ্বরে অ্যান্টনি ফিরিঙ্গির চরিত্রেও সাফল্যের সঙ্গে অভিনয় করেন। ১৯ শতকের বাংলার একজন প্রখ্যাত আধ্যাত্মিক নেতা, কবি এবং লোকগায়ক লালনের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন মনের মানুষ সিনেমায়। 

অমর সঙ্গী সিনেমার "চিরোদিনই তুমি যে আমার" গানটি চিরকালীন সুপারহিট। তার সঙ্গে অর্ধশতাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন শতাব্দী রায়। তিনি রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে ৩৫টি, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের সঙ্গে ৫০টি, ইন্দ্রাণী হালদারের সঙ্গে ১৬টি এবং তার স্ত্রী অর্পিতা পালের সঙ্গে চারটি চলচ্চিত্র করেছেন। আয়েশা ঝুলকা, ফিরোজ খান এবং সালমা আগার সাথে মেহুল কুমার পরিচালিত মিট মেরে মন কে (১৯৯১)-এ প্রধান নায়কের ভূমিকায় অভিনয় করে হিন্দি সিনেমায়।

তাঁর অন্যান্য বলিউড চলচ্চিত্র হল সোনে কি জাঞ্জির, বীরতা, সাংহাই এবং সম্প্রতি ট্র্যাফিক যা মুক্তির পর সমালোচকদের প্রশংসা পেয়েছে। প্রসেনজিতের জনপ্রিয় কাজগুলির মধ্যে রয়েছে কাছের মানুষ,রবিবার,বাঘ বন্দি খেলা,ময়ূরাক্ষী, জুলফিকার, লড়াই। এতো কথার মধ্যেও ভুলে গেলে চলবে না যে তার জন্মদিনে এবং পুজোর মরসুমে মুক্তি পাচ্ছে নতুন বাংলা সিনেমা যার নাম কাছের মানুষ। ৬০তম জন্মদিনে তার শ্রেষ্ঠ উপহার হবে যদি সকলে মিলে সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমাটি দেখে। বাংলা সিনেমার জন্য বছরের পর বছর তিনি কিন্তু অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। সেই জন্যই হয়তো তিনি নিজেই টলিউডের 'ইন্ডাস্ট্রি'।